Breaking News
Home / রংপুর বিভাগ / জাতীয় ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পইন উপলক্ষ্যে রংপুরে অবহিতকরণ ও পরিকল্পনা সভা অনুষ্ঠিত

জাতীয় ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পইন উপলক্ষ্যে রংপুরে অবহিতকরণ ও পরিকল্পনা সভা অনুষ্ঠিত

জাতীয় ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পইন উপলক্ষ্যে রংপুরে অবহিতকরণ ও পরিকল্পনা সভা অনুষ্ঠিত

জাতীয় ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পইন এর দ্বিতীয় রাউন্ড সফলভাবে সম্পন্ন করার লক্ষ্যে রংপুর সিটি কর্পোরেশনে অবহিতকরণ ও পরিকল্পনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে নগর ভবনের সভা কক্ষে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।
রংপুর সিটি কর্পোরেশন (রসিক) প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. মো. কামরুজ্জামান এবনে তাজের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত অবহিতকরণ ও পরিকল্পনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা।
প্রধান অতিথির বক্তৃতায় মেয়র মোস্তফা বলেন, ভিটামিন এ প্লাস ক্যাম্পইন সরকারের সবচেয়ে সফল একটি উদ্যোগ। এই ক্যাম্পইনের মাধ্যমে অপুষ্টিজনিত অন্ধত্ব থেকে শিশুরা রক্ষা পাচ্ছে। শিশুদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করাসহ ডায়রিয়ার ব্যাপ্তিকাল ও জটিলতা কমাবে। শিশু মৃত্যুর ঝুঁকি কমায়।বিশেষ অতিথি ছিলেন রংপুর বিভাগীয় স্বাস্থ্য সহকারী পরিচালক ডাঃ শাহিন আরা হক, জেলা সিভিল সার্জন ডা. মো. জাকিরুল ইসলাম লেলিন, রসিকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আকতার হোসেন আজাদ, রসিকের সচিব আবু ছালেহ্ মো. মুসা জঙ্গী ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের প্রতিনিধি ডাঃ মাঈন উদ্দিন।
সভায় রসিকের প্যানেল মেয়র মাহমুদুর রহমান টিটু, ২১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মাহাবুবার রহমান মঞ্জু, ৯নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর নজরুল ইসলাম নজু দেওয়ানী, মেয়রের একান্ত সহকারি সচিব জাহিদ হোসেন লুসিডসহ বিভিন্ন ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত কাউন্সিলররা উপস্থিত ছিলেন।
সভায় চলতি মাসের ১৯ জানুয়ারী জাতীয় ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পইন এর দ্বিতীয় রাউন্ড সফল করতে বিভিন্ন পরিকল্পনা তুলে ধরা হয়। রংপুর সিটি কর্পোরেশনের ৩৩টি ওয়ার্ডের ৬ থেকে ১১ মাস বয়সী শিশুদের ১টি করে নীল রঙের এবং ১২ থেকে ৫৯ মাস বয়সী শিশুদের লাল রঙের ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে। নগরীর বিভিন্ন এলাকা, বাস স্ট্যান্ড ও রেল স্টেশনসহ সর্বমোট ২৯৭টি কেন্দ্রের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে ৫৯৪ জন স্বাস্থ্যকর্মী ও স্বেছাসবী কর্মীদের মাধ্যমে শিশুদের ভিটামিন এ প্লাস ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে। সার্বক্ষনিক তদারকিতে থাকছেন ৬৬জন সুপারভাইজার এবং ০৬জন কর্মকর্তা মনিটরিং ও সুপারভিশনের দায়িত্বে থাকবেন। এবারের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারন করা হয়েছে ৬ থেকে ১১ মাস বয়সী শিশু ১৯.২৩৩ জন এবং ১২ থেকে ৫৯ মাস বয়সী শিশু ১,০৬,৯৯৬ জন। সর্বমোট ৬৬৬জন স্বাস্থ্য কর্মকর্তা,স্বাস্থকর্মী ও স্বেচ্ছাসেবী কাজ করবেন। ####

১০.০১.২০১৯ইং।

About fcnnews

Check Also

রংপুর বিভাগীয় প্রশাসনের শীতবস্ত্র বিতরণ

রংপুর বিভাগীয় প্রশাসনের শীতবস্ত্র বিতরণ আবুল হোসেন বাবলু; রংপুর বিভাগীয় প্রশাসন পরিবার এসোসিয়েশনের উদ্যোগে দুস্থ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *